Home সাধারণ এক সের মাংস ও টিম জিরো

এক সের মাংস ও টিম জিরো

13
0

মাহমুদুর রহমান:

“এক সের মাংস “- এটা শুনে খুব সাধারণ মনে হলেও অনেকের কাছেই এটা পাওয়া অসাধারণ ও অসম্ভব কিছু। সেই অসম্ভব কিছু কে কিছুটা সম্ভবের দিকে নিয়ে যাওয়াই এবারের ইদে টিম জিরোর কার্যক্রম। বছর ঘুরে আবারো ঈদ আসছে। কিন্তু ঈদের আনন্দ ধনী-গরিব সবার একই সমান হয়না। আর বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে এই অসমতাটা আরো বেড়ে যাচ্ছে। তাই তাদের এবারের কর্মসূচি – “এক সের মাংস”।

বেশিরভাগ অসহায় পরিবারের বাচ্চারা তাকিয়ে থাকে ঈদের দিনে পেটভরে মাংস খাবে। কিন্তু যেখানে  বাজারে গরু, খাসি, মুরগি তিনটাই অনেক বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে সেখানে তাদের পক্ষে এগুলো অল্প করে কেনাও কষ্টসাধ্য। মাংসের যোগান দিতে না পেরে এসব বাচ্চাদের বাবা মা এর নীরবে অশ্রু ঝড়ানো ছাড়া কিছু করার থাকেনা। শুধুমাত্র এই চিন্তা থেকেই টিম জিরোর এই প্রজেক্ট যার মাধ্যমে দেড়শ র বেশি পরিবার এর কাছে পৌছে যাবে এক সের মাংস।

তাদের সংগ্রহে যে অর্থ এসেছে তা থেকেই তারা একটি গরু ও খাসি কিনে তাদের সুন্দর উদ্দেশ্য সফল করার উদ্যোগ নিয়েছে। এর আগেও তারা বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়ে সফল করতে পেরেছে।তাদের কর্মকাণ্ডের অন্তর্ভুক্ত ছিল বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দান। এই মুহূর্তে ২টি সিলিন্ডার রয়েছে। আরো তিনটি যোগ হবে ইদের পর পরই।

এছাড়াও গতবছর পুরো লকডাউন জুড়ে প্রায় ৫০০০ হাজার মানুষের মাঝে ত্রান বিতরণ,৬০০ এর বেশি মানুষের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা,অসহায় শিক্ষার্থীদের জন্য প্রায়  ৮০ হাজার টাকার এককালীন বৃত্তির ব্যবস্থা,পথশিশুদের জন্য ঈদের কাপড়ের ব্যবস্থা,শহরের রিক্সাসমূহে জীবাণু প্রতিরোধী ডিসইনফেকটেন্ট স্প্রে সংযোজন যা ‘প্রজেক্ট শুদ্ধযাত্রা’ নামে পরিচিত,অসহায় কোভিড আক্রান্ত রোগীদের মাঝে ১৫ টা অক্সিমিটার দান,নায্য মূল্যে অক্সিমিটার বিতরণ এসব কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত থেকে তারা মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছে।

টিম জিরোর প্রতিষ্ঠা হয় ২০২০ সালের ২৫ শে মার্চ। গত বছরের মার্চ মাসে যখন হঠাৎ করেই করোনা পরিস্থিতি মানুষের জীবন দুর্বিসহ করে তুলতে শুরু করেছিল তখন ই রাজশাহী শহরের এইচএসসি’১৫ ব্যাচের একদল তরুন-তরুনির উদ্যোগে একটি মেসেঞ্জার  গ্রুপ খোলা হয়। তাদের উদ্দেশ্য ছিল কঠিন অবস্থায় শহরের  মানুষের পাশে থাকা এবং তাদের বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা। পরবর্তীতে তাদের সাথে যোগ দেয় এইচএসসি ১৬,১৭ ব্যাচের কিছু শিক্ষার্থী এবং তারা একত্রে উদ্দেশ্য সফলে কাজ শুরু করে।

শূন্য অবস্থা থেকেই মানুষ এর জন্য কাজে নেমে পড়েছিল তারা আর তাই গ্রুপের নাম ও দেয়া হয়েছে “জিরো”। বর্তমানে সাড়ে চার হাজার মানুষকে নিয়ে তাদের ফেসবুক গ্রুপ  ” জিরো- লেটস ফাইট ফর দেয়ার স্মাইল” এবং তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে সবাই তাদের কর্মকান্ডে সাহায্য করে যাচ্ছে। সবার ভরসার জায়গাটা তারা তাদের কাজের মাধ্যমেই  পেয়েছে। ভবিষ্যতে এরকম আরও উদ্যোগ নিয়ে মানুষের পাশে থাকা ও নিঃস্বার্থভাবে তাদের জন্য কাজ করাই টিম জিরোর স্বপ্ন। এগিয়ে যাক টিম জিরো, পূরণ হোক তাদের স্বপ্ন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here