Home বইপত্র সাবজেক্ট রিভিউ ‌- ফার্মেসি

সাবজেক্ট রিভিউ ‌- ফার্মেসি

57
0

আমরা অনেকেই শুনে থাকি ফার্মাসিস্টগণ রোগীর প্রেসক্রিপশন করে থাকেন।তবে কি ফার্মাসিস্টগণ ডাক্তারদের মতো কাজ করে থাকেন নাকি অন্যকিছু!!
আমরা হয়তো এই বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা রাখি না।তবে কি ফার্মাসিস্টগণ একজন ডাক্তার!!?
না,তা কিন্তু নয়।একজন ফার্মাসিস্টকে বলা হয় মাস্টার অব ড্রাগ( Master of drug)যেখানে একজন ডাক্তারকে বলা হয় মাস্টার অব ডিজিজ( Master of disease)।

ফার্মেসি পড়ে জীবনে কি হতে পারি তা নিয়ে আলোচনার চেষ্টা করছি।

ফার্মেসি কি(What is Pharmacy)?
ফার্মেসি (Pharmacy) শব্দটি গ্রীক শব্দ Pharmacon থেকে উদ্ভূত যার অর্থ হচ্ছে ড্রাগ, অন্য অর্থে মেডিসিন। ফার্মেসি বিজ্ঞানের এমন একটি শাখা যা কিনা ফার্মাসিউটিক্যাল ড্রাগ উৎপাদন, বিপণন এবং সঠিক,নিরাপদ ও কার্যকর প্রয়োগ নিশ্চিত করে।ফার্মাসিতে অভিজ্ঞ ব্যক্তিকে বলা হয় ফার্মসিস্ট(Pharmacist)।

ফার্মেসির মূল উদ্দেশ্য কি?
একজন রোগীর নিকট সঠিক ও নিরাপদ মেডিসিন পোঁছে দেয়া এবং এর কার্যকর প্রয়োগের মাধ্যমে ইতিবাচক ফলাফল সুনিশ্চিত করাই হচ্ছে ফার্মেসি এর মূল উদ্দেশ্য।

ফার্মেসির মূল ভিত্তি কি?
রসায়ন / জীব বিজ্ঞান ও স্বাস্থ্য বিজ্ঞান হল ফার্মেসি এর মূল ভিত্তি।

চলো জব সেক্টর আলোচনার পূর্বে জেনে আসি এই সাবজেক্ট কোথায় কোথায় পড়ানো হয়?
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্যে ফার্মেসি পড়ানো হয়- ১.ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়,
২.জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৩.রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
৪.খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়,
৫.জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়,
৬. চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়,
৭.কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়,
৮.নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,
৯. পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সহ আরও কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে।
প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্যে রয়েছে-
১.এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটি ,২.স্টেট ইউনিভার্সিটি , ৩.ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি, ৪.নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি ৫.সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি,৬.ব্রাক ইউনিভার্সিটি সহ আরও কিছু বিশ্ববিদ্যালয়।
বিদেশে ফার্মেসি পড়তে চাইলে প্রথমেই যে দুটি দেশের নাম সবার আগে মনে আসে তা হল যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্র। ফার্মেসি পড়ার জন্য শীর্ষস্থানীয় দুটি বিশ্ববিদ্যালয় হলো যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় এবং যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়।কিন্তু ব্যয়বহুল হওয়ার কারণে এবং শিক্ষা বৃত্তির সুযোগ কম থাকার ফলে দেশে ফার্মেসি পড়াই বেশি সুবিধাজনক।

ফার্মেসি শিক্ষার ডিগ্রিসমূহ-
১.ডি ফার্ম(ডিপ্লোমা ইন ফার্মেসি)
২.বি ফার্ম(ব্যাচেলর অব ফার্মেসি)
৩.এম ফার্ম(মাস্টার অব ফার্মেসি)
৪.ফার্ম ডি(ডক্টর অব ফার্মেসি)

কি কি পড়ানো হয় এই সাবজেক্টে?

ফার্মেসিতে যা পড়ানো হয় তার মধ্যে রয়েছে-
১.রসায়ন (Inorganic / Organic / Physical / Analytical / Medicinal / Chemistry),
২.মানবদেহ ( Physiology / Anatomy), ৩.ওষুধবিদ্যা(Pharmacognosy / Pharmacology / Pharmaceutical technology / Quality control / Pharmaceutical Engg / Bio pharmaceutics), ৪.লাইফ সাইন্স এর অন্যান্য বিষয় (Microbiology / Biochemistry / Biotechnology) ও
৫.Hospital pharmacy / Clinical pharmacy, ৭.Statistics সহ আরও কিছু বিষয়।

জব সেক্টরঃ
১.পেশা গ্রহনের সুযোগ(Careeer Opportunity) :ফার্মেসি বিষয়ের উপর নির্দিষ্ট ডিগ্রী অর্জনের পর একজন ফার্মেসিস্ট হিসেবে আপনি স্বাস্হ্যসেবার বিস্তৃত ক্ষেত্র যেমন হাসপাতাল, ক্লিনিক,ফার্মেসি শিল্প (Pharmaceutical Industry), নার্সিং হোম,শিক্ষকতা প্রভৃতি বিষয়ে ক্যারিয়ার উন্নত করতে পারবেন।
২.কমিউনিটি ফার্মেসি (Community Pharmacy)।
৩.হসপিটাল ফার্মেসি(Hospital Pharmacy) :এক্ষেত্রে একজন ফার্মাসিস্ট একজন ডাক্তারের মতো সরাসরি রোগীর স্বাস্হ্যসেবায় নিয়োজিত হন।
৪.ম্যানেজড কেয়ার ফার্মেসি (Managed Care Pharmacy) :ম্যানেজড কেয়ার বলতে স্বাস্হ্যসেবার এমন একটি পদ্ধতিকে বোঝায় যা কিনা স্বাস্হ্য সেবার মূল্যমান কমিয়ে আনবে কিন্তু স্বাস্হ্যসেবার গুণগত মানকে করবে আরো উন্নত।
৫.ফার্মেসি শিল্প(Pharmaceutical Industry) :বাংলাদেশে পোশাক শিল্পের পরে ফার্মেসি শিল্পের অবদান অপরিহার্য। ১৫১ টির মতো ওষধ শিল্পে জব পাওয়া বেশি কঠিন নয়।আপনি খুব সহজে জব পেতে পারেন।
৬.একাডেমিক ফার্মেসি (Academic Pharmacy) :এক্ষেত্রে ফার্মাসিস্টগণ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি অনুষদে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়ে থাকে। শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাওয়া খুব একটা কঠিন বিষয় নয়।
৭.অনলাইনে ফার্মেসি (Online Pharmacy) :এই খাতের আরেকটা নাম হল ইন্টারনেট ফার্মেসি। ফার্মাসিস্টগণ ইন্টারনেট এর মাধ্যমে গ্রাহকদের স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে থাকে।
৮.নিউক্লিয়ার ফার্মেসি (Nuclear Pharmacy) :এ ধরনের ফার্মাসিস্টগণ বিভিন্ন জটিল রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসায় তেজস্ক্রিয় দ্রব্যের ব্যবহার করে থাকেন।
৯.কম্পাউন্ডিং ফার্মেসি (Compounding Pharmacy) :এই ধরনের ফার্মাসিস্টগণ একটি আবিষ্কৃত ড্রাগ এর বাহ্যিক বা অভ্যন্তরীন গঠন পরিবর্তনের পেশায় নিয়োজিত হন।
১০.ভেটেনারি ফার্মেসি (Veterinary Pharmacy) :এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ফার্মাসিস্টগণ পশুস্বাস্হ্য সেবায় নিয়োজিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রাপ্ত হন।

দেশের বাইরে চাকরির সুযোগ – ২০০৩ সালের পর থেকে আমেরিকায় ৪ বছরের অনার্স ডিগ্রিধারীদের ফার্মাসিস্ট নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশ নিতে দেয়া হচ্ছে না।অর্থাৎ যদি কেউ আমেরিকায় ফার্মাসিস্ট হিসেবে কাজ করতে চান তার ৫ বছরের অনার্স ডিগ্রি লাগবে।বর্তমানে বাংলাদেশে শুধুমাত্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ বছরের অনার্স চালু হয়েছে।ফার্মাসিস্ট ছাড়া অন্যান্য চাকরির জন্য ৪ বছরের অনার্স ডিগ্রি যথেষ্ট। আমেরিকা ছাড়া বাকি দেশে ৪ বছরের ডিগ্রি গ্রহণীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here